Environmental Science & Engineer's Blog | JKKNIU

Jatiya Kabi Kazi Nazrul Islam University | Trishal, Mymensingh

October 30, 2019

ইএসই আন্তঃব্যাচ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন ইএসই ৩য় ব্যাচ

এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট এর ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের জয় বাংলা সংলগ্ন মাঠে ইএসই-৩ বনাম ইএসই-৪ এর মধ্যকার ম্যাচে শ্বাসরুদ্ধকর ট্রাইব্রেকারে ইএসই-৩ ব্যাচ বিজয়ী হয়।



খেলার স্কোরঃ ইএসই-৩ [ ১ (২) - ১ (০) ]
ইএসই-৪

বল দখলের লড়াইটা প্রায় সমান হলেও দারুণ সব আক্রমণ করেছিল ইএসই ৪র্থ ব্যাচ । তাই প্রথমার্ধে একটি গোলের দেখা পায় তারা। তারপর দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণে যায় ইএসই ৩য় ব্যাচ। শেষ কয়েক মিনিট আগে গোলের দেখা পায় ৩য় ব্যাচ।

তারপর অতিরিক্ত সময় পায় দুই দল, সেখানেও পাল্টাপাল্টি আক্রমণ চলে, কিন্তু কোনো গোলের দেখা পায় নি উভয় দল। শেষ পর্যন্ত খেলা গড়ায় ট্রাইবেকারে

ট্রাইব্রেকারে ৩য় ব্যাচের ইমনের অসাধারণ গোলকিপিং এ ২ - ০ তে জয় এর দেখা পায় ইএসই-৩।

খেলায় উপস্থিত ছিলেন ইএসই বিভাগের সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থী। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর মহোদয় ডঃ উজ্জ্বল কুমার প্রধান। তিনি বলেন, "এই ধরনের খেলার মধ্য দিয়ে আমি মনে করি, বিভাগের বন্ধন ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সম্প্রীতি বয়ে আনবে এবং অন্যান্য বিভাগের জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে"।

তারপর বিভাগের চেয়ারম্যান মহোদয় জনাব ডঃ আশরাফ আলী সিদ্দিকী বক্তব্য প্রদান করেন৷ তিনি এই টুর্নামেন্টের আয়োজকদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন, অংশগ্রহণকারীদের অভিনন্দন জানান।

খেলায় ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হয় "ইসতিয়াক আহমেদ ইমন"। ম্যান অব দ্যা টুর্নামেন্ট হয় "অনিক চক্রবর্তী"। বিভাগের শিক্ষক ও প্রক্টর মহোদয় বিজয়ী ও রানার্সআপ দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে পুরষ্কার প্রদান করেন।

WB/EFFAT/ESE/2019

June 05, 2019

ঈদের কারণে বাংলাদেশে পরিবেশ দিবস ৫ জুনের পরিবর্তে ২০ জুন | প্রতিপাদ্য - বায়ু দূষণ

আজ ৫ জুন, বিশ্ব পরিবেশ দিবস। এবার পরিবেশ দিবসের প্রতিপাদ্য বায়ুদূষণ

চীনে এবার বিশ্ব পরিবেশ দিবসের প্রধান আয়োজন হবে। তবে আগ্রাসী উন্নয়ন নীতির কারণে চীনই সবচেয়ে বেশি বাতাসে বিষ ছড়াচ্ছে। বিষাক্ত বাতাসের কারণে বিশ্ব মিডিয়ায় বেইজিং-সাংহাই সংবাদের শিরোনাম হয়েছে বারবার। এবার সেই চীনই পরিবেশ দিবসের হোস্ট কান্ট্রি বা আয়োজক দেশ।


আর পরিবেশের প্রধান উপাদান বাতাস এবার পরিবেশ দিবসের প্রতিপাদ্য। জাতিসংঘের আয়োজনে প্রতিবছর ৫ জুন সারাবিশ্বে পরিবেশ দিবস পালিত হয়। এবার এ দিবসে বাংলাদেশে ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সরকারি অফিস আদালত ছুটির কারণে দেশে পরিবেশ দিবস পালন হবে ২০ জুন। বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় ঢাকায় পরিবেশ দিবসের প্রধান আয়োজন করবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। 


জাতিসংঘ বলছে, পরিবেশ দিবসটি একান্ত গণমানুষের। এইদিন মানুষ পৃথিবীর জন্য শুভ কিছু করার প্রত্যয় ব্যক্ত করবে। এতে পৃথিবীর পরিবেশ সুন্দর হয়ে উঠবে। প্রতিবছর একটি দেশই পরিবেশ দিবসের আয়োজন করে, যা এবার করছে চীন। সঙ্গত কারণে চীনেই হবে এবার পরিবেশ দিবসের মূল আয়োজন। যেসব দেশ উন্নয়নের শুরুর দিকে পরিবেশকে বিষিয়ে তুলেছে চীন তাদের মধ্যে অন্যতম। তবে চীন সারাদেশে ব্যাপকভাবে বৃক্ষ রোপণের মাধ্যমে পরিবেশ রক্ষা করার চেষ্টা করছে। আগে বেইজিংয়ের বাতাসে যে দূষণ দেখা যেত এখন আর তা দেখা যায় না। এ কারণে আগ্রাসী অর্থনৈতিক উন্নয়নের বদলে টেকসই উন্নয়ন খুব জরুরি। 


বাংলাদেশেও আগ্রাসী উন্নয়ন নীতি গ্রহণ করা হয়েছে কিনা তা এখনই ভেবে দেখার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছে পরিবেশ সংগঠনগুলো। বিশেষ করে দেশের দুটি অঞ্চল পটুয়াখালী এবং কক্সবাজারে নির্মাণ করা হচ্ছে কয়লাচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র। এই দুই এলাকায় ২০৩০ সালের মধ্যে অন্তত ১০ হাজার মেগাওয়াট কয়লাচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের উচিত আরো আরো গাছ রোপন করা। সরকারী উদ্যোগে সারাদেশে ব্যাপক গাছ রোপন করা। শুধু বায়ু নয়, মাটি ও পানি যাতে কম দূষিত হয় সে চেষ্টা আমাদের করতে হবে। 


জাতিসংঘের দূষণ না করার চুক্তিতে সই করে বাংলাদেশ।বিশ্বের অনেক দেশ এখন কয়লা থেকে সরে আসছে। বলা হচ্ছে, কয়লা হচ্ছে ডার্টি ফুয়েল। এই কয়লার কারণে সারাবিশ্বে দূষণের মাত্রা বাড়ছে। সময় দেওয়া হয়েছে, আগামী ২০ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে সারাবিশ্ব কয়লা থেকে মুক্ত হয়ে যাবে। কিন্তু কয়লার ব্যাপারে আমাদের অবস্থান এখন নড়বড়ে। অনেকে মনে করেন, এখন কয়লা ছাড়া অন্য জ্বালানি দিয়েও বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব। কাজেই বায়ু দূষণ কমাতে হলে কয়লা বর্জন করতেই হবে।


সোর্সঃ বাই/জাই

February 19, 2019

তামিমের ব্যাটিং নৈপূণ্যে বাংলাকে হারিয়ে জিতলো ইএসই

জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয়েছে আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ডিপার্টমেন্ট  ক্রিকেট প্রতিযোগিতা। তারই ধারাবাহিকতায় আজ গ্রুপ পর্বের ম্যাচে মুখোমুখি হয় ইএসইবাংলা বিভাগ।

শুরুতে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ই এস ই। বাংলা বিভাগের অনিক ভাইয়ের মারমুখী ব্যাটিংয়ে আর ই এস ই এর ফিল্ডারদের বল মিসের সুবাদে একটা সময় মনে হচ্ছিল ১২ ওভারে রান ১৩০+ হবে। কিন্তু ৭/৮ ওভার থেকে লাস্ট ওভার পর্যন্ত দারুণ বোলিং আর হিসাবী ফিল্ডিংয়ে ১২ ওভার শেষে বাংলা বিভাগের রান থামে ১০০ তে। লাস্ট ওভারে হ্যাট ট্রিকের আশা জাগিয়েও নয়নকে ওভার হ্যাট ট্রিকের স্বাদ নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়। 

১০১ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নামে ই এস ই এর ওপেনার নয়ন আর জুবায়ের। ওভার প্রতি ৮.৫+ রানরেটের ম্যাচটা যেখানে সহজেই জিতে নেওয়া যায় সেখানে খেলোয়াড়েরা যেন উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসার মিছিলে নাম লেখালো। জুবায়ের থেকে শুরু করে একে একে নয়ন, রাশেদ, আলামিন, অনিক, লুৎফর, আদেল সবাই প্যাভিলিয়নের পথে। আর এই সবার একে একে প্যাভিলিয়নের দিকে ফিরে যাওয়া হতাশ হয়ে দেখছিলো অপরপ্রান্ত আগলে রাখা ব্যাটসম্যান তামিম। বলে রাখা ভালো, এর মধ্যে দুবার ক্যাচ মিসের মাধ্যমে জীবন পাওয়া হয়ে গেছে তামিমের। ওভারে যেখানে ৮.৫+ করে রান লাগতো সেখানে শেষ ৩ ওভারে দরকার ৪২ রান। ব্যাটিংয়ে তখনও একপ্রান্ত আগলে রাখা তামিম আর অন্যপ্রান্তে নতুন ব্যাটসম্যান ইমন। দলকে জেতানোর তাগিদ থেকেই অথবা সবার করুণ মুখে হাসি ফোটানোর জন্যই অথবা ক্যাচ মিস মানে যে ম্যাচ মিস সেটা বাংলা ডিপার্টমেন্টকে আরেকাবার নতুন করে বোঝানোর জন্যই বোধহয় এবার জ্বলে উঠল তামিম। ক্রিকেট বলটাকে তামিম মনে হয় তখন ফুটবল দেখা শুরু করল। একের পর এক বাউন্ডারি আর ওভার বাউন্ডারির ফুলঝুড়িতে ম্যাচটাকে জিতে মূল্যবান কিছু পয়েন্ট ঝুলিতে ভরে অবশেষে মাঠ ছাড়লো ই এস ই এর বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান তামিম। ম্যাচের শুরুতে টস জেতার মাধ্যমে শুরু করে শেষে এসে অনিক ভাইয়ের বলটাকে অফসাইডে ছয় হাকিয়ে ম্যাচটাকেই জিতে নিলো ই এস ই তামিমের উপর ভর করে।

(Written by: Sujoy Saha)

December 11, 2018

অনুষ্ঠিত হল জাককানইবির ইএসই ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক আয়োজিত সেমিনার

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত এক সেমিনার মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

উক্ত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ডঃ এ.এইচ.এম মোস্তাফিজুর রহমান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর মোঃ জালাল উদ্দিন, ট্রেজারার, জাককানইবি এবং মিঃ শফিকুল ইসলাম, সেক্রেটারি, শিক্ষক সমিতি, জাককানইবি। এছাড়াও ইএসই ডিপার্টমেন্টের সকল শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

চেয়ারপার্সন হিসেবে ছিলেন ইএসই ডিপার্টমেন্ট এর চেয়ারম্যান ডঃ আশরাফ আলী সিদ্দিকী। 

তিনি উক্ত সেমিনারের টপিক "Hydrogeochemical and Isotopic Signatures for the identification Seawater intrusion in the paleobeach aquifer of Cox's Bazar City and It's surrounding area, South-East Bangladesh" নিয়ে সবার সামনে বিস্তারিত আলোচনা করেন। 

তারপর আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ সেমিনারের উক্ত বিষয় সম্পর্কে মূল্যবান মতামত প্রদান করেন। 

পরিশেষে, সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে সেমিনারটি সফলভাবে সম্পন্ন হয়।



November 10, 2018

জাককানইবি ভর্তি পরীক্ষার্থীদের সহায়তায় ইএসই পরিবার

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট এর পক্ষ থেকে ভার্সিটির দুই গেইটের সামনে সকল শিফট ও ইউনিটের আসনবিন্যাস দেওয়া হয়েছে। 

ইএসই পরিবারের পক্ষ থেকে ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থীরা নবাগত সকল পরীক্ষার্থীদের জন্য এ উদ্যোগ নেয়।

পরীক্ষার্থীরা যেকোনো প্রয়োজনে ব্যানারে দেওয়া নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করতে পারবে। ইএসই পরিবার সর্বাত্মক সহযোগীতা করবে।

ভর্তিচ্ছু সকল শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন রইল। তোমাদের পদচারণায় মুখরিত হোক ক্যাম্পাস। 😊

জাই/ইএসই/১৮





October 09, 2018

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিযুদ্ধ ২০১৮ - বিস্তারিত

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ ।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের ২১তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। এটি বাংলাদেশের প্রথম সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। ময়মনসিংহ শহর হতে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে, ত্রিশাল উপজেলা সদর হতে ৩ কিলোমিটার দূরে নামাপাড়া-বটতলায় অবস্থিত। ঢাকা হতে এর দূরত্ব ১০০ কিলোমিটার। এর বর্তমান আয়তন ৫৬ একর (অধিগ্রহণ সহ)।
বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম বাংলাদেশের জাতীয় কবি। তার স্মরণে কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতি বিজরিত বটতলা ঘেঁষে গ্রাম-বাংলার মনোমুগ্ধকর প্রাকৃতিক পরিবেশে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। কবি নজরুল ছোট বেলায় এই বটগাছের নিচে বসে বাঁশি বাজাতেন। কবি ত্রিশালের দরিরামপুর হাই স্কুলে পড়াশুনা করতেন। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের অদূরেই নজরুল স্মৃতি জাদুঘর অবস্থিত।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ৪টি অনুষদের অধীনে ১৯টি বিভাগের অধীনে পাঠদান করা হয়।
জাককানইবিতে সম্মান প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ইউনিট ভিত্তিক সাবজেক্ট, আসন সংখ্যা এবং শর্তাবলিঃ
=================

আবেদন ওয়েবসাইট লিংকঃ Click Here
সার্কুলার PDF লিংকঃ Click Here

ভর্তি পরীক্ষাঃ সেশন ২০১৮-১৯
********************************************
✔ইউনিট ভিত্তিক সাবজেক্ট, আসন সংখ্যা এবং শর্তাবলিঃ
----------------------------------------------------------------------------
AL ইউনিট ও আসনঃ
----
✔সাবজেক্টঃ
১. বাংলা ৫৫ টি
২. ইংরেজী ৫০টি।

✔নৈর্ব্যক্তিকঃ বাংলা - ৪৫টি, ইংরেজীঃ ৪৫টি, সাধারণ জ্ঞানঃ ১০টি।

✔শর্তাবলিঃ
১. সাইন্সের শিক্ষার্থীদের আবেদনের যোগ্যতাঃ এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি তে কমপক্ষেঃ ৩.৫০ সহ টোটাল ৮.০০ থাকতে হবে।
২.কমার্স ও আর্টসের শিক্ষার্থীদের আবেদনের যোগ্যতাঃ
এসএসসি ও এইচএসসি তে কমপক্ষে ৩.৫০সহ টোটাল  ৭.৫০ থাকতে হবে।

✔ইংরেজীতে ভর্তির ক্ষেত্রেঃ
এসএসসি ও এইচএসসি উভয় পরীক্ষাতেই ইংরেজীতে ৪.০০ থাকতে হবে।
ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজীতে কমপক্ষে ১৮ মার্কস পেতে হবে। নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষার পর লিখিত পরীক্ষায় পাশ করতে হবে।
************************************************
 ✅AP ইউনিটঃ
---
✔সাবজেক্ট ও আসনসংখ্যাঃ
১. চারুকলা ৪০টি
২.নাট্যকলা ৩০ টি
৩. মিউজিক ৫৫ টি
৪. ফিল্ম এন্ড মিডিয়া ২৫ টি।

✔নৈর্ব্যক্তিকঃ
বাংলা ২০, ইংরেজী ২০, বিষয়ভিত্তিক ১৫*৪=৬০।

✔শর্তাবলিঃ
কমার্স ও আর্টসের স্টুডেন্টদের এসএসসি ও এইচএসসি তে কমপক্ষে ৩.৫০সহ টোটাল ৭.০০ থাকতে হবে।
সাইন্সের স্টুডেন্টদের ৩.৫০ সহ টোটাল ৭.৫০ থাকতে হবে।
নৈর্ব্যক্তিকের পর ব্যবহারিক পরীক্ষায় পাশ করতে হবে হবে।
***********************************************
✅B ইউনিটঃ
------
✔সাবজেক্টসমূহঃ
১. কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ৪০টি
২. ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকটনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং ৪০টি
৩. এনভায়রনমেন্টাল সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ৪০টি।

✔নৈর্ব্যক্তিকঃ
আবশ্যিকঃ ইংরেজী ২০টি, পদার্থ ৪০ টি, গণিত ৪০ টি।

✔শর্তাবলিঃ
বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসি তে কমপক্ষে ৩.৫০ সহ টোটাল ৭.৫০ থাকতে হবে।
************************************************
✅C ইউনিট
-----------
✔সাবজেক্ট ও আসন সংখ্যাঃ
১. ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং ৫০টি।
২. একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম ৫০টি।
৩. হিউমান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট ৫০টি।

✔নৈর্ব্যক্তিকঃ
আবশ্যিকঃ বাংলা ১০টি, ইংরেজী ২৫টি, ম্যাথ ১৫টি।
ঐচ্ছিকঃ
কমার্সের স্টুডেন্টদের জন্যঃ হিসাব বিজ্ঞান ২৫টি, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ ২৫টি।
সাইন্স ও আর্টসের স্টুডেন্টদের জন্যঃ সাধারণ জ্ঞান ৫০টি।

✔শর্তাবলিঃ
উভয় পরীক্ষাতেই ৩.৫০ সহ সাইন্সের স্টুডেন্টদের টোটাল ৭.৫০।
এবং কমার্স, আর্টসের স্টুডেন্টদের টোটাল ৭.০০ থাকতে হবে।
ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজীতে ২৫ এর মধ্যে কমপক্ষে ৮ পেতে হবে।
***********************************************
D ইউনিট
------
✔সাবজেক্ট ও আসন সংখ্যাঃ
১. আইন ৫৫ টি
২. ইকোনমিক্স ৫৫ টি
৩. পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন ৫৫ টি
৪. ফোকলোর ৫৫ টি
৫. নৃবিজ্ঞান ৫৫ টি
৬. পপুলেশন সাইন্স ৫৫ টি
৭. স্থানীয় সরকার ও নগর উন্নয়ন ৫৫ টি।

✔নৈর্ব্যক্তিকঃ বাংলা ২০, ইংরেজী ৩০, সাধারণ জ্ঞান ৩০, গাণিতিক যুক্তি ও মানসিক দক্ষতাঃ ২০।

✔শর্তাবলিঃ
সাইন্সের স্টুডেন্টদের উভয় পরীক্ষাতে ৩.৫০ সহ টোটাল ৮.০০ থাকতে হবে।
কমার্সের স্টুডেন্টদের উভয় পরীক্ষাতে ৩.৭৫ সহ টোটাল ৮.০০ থাকতে হবে।
আর্টসের স্টুডেন্টদের উভয় পরীক্ষাতে ৩.৫০ সহ টোটাল ৭.৫০ থাকতে হবে।
ভর্তি পরীক্ষায় ইংরেজীতে অবশ্যই ৩০ এর মধ্যে ১২ পেতে হবে।
*********************************************
✔জিপিএঃ ৩০ মার্কস। এসএসসি ১২, এইচএসসি ১৮। (সকল ইউনিটে)
------------------------------------------------------------
ফরমের মূল্যঃ
AP 650/-
AL 650/-
B  600/-
C  600/-
D  600/-
*********************************************
✔অনলাইনে বা এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে ৩১শে অক্টোবর রাত ১২ টা পর্যন্ত।
**********************************************
পরীক্ষার তারিখঃ
AL- 11-11-18
AP- 12-11-18
B-   13-11-18
C-  14-11-18
D-  15-11-18
*********************************************
এডমিট কার্ড ডাউনলোডঃ
 ৩ থেকে ১০ নভেম্বরের মধ্যে।

Tags: JKKNIU Admission Test 2018 Information | Notice

July 13, 2018

পরিবেশ সম্পর্কিত বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দিবসগুলো


This is a list of environmental dates. These dates are designated for creating awareness of environmental issues.

World Forest day → 21 March

World Water & Sanitation day → 22 March

World Resources day → 23 March

World Atmosphere Day → 10 April

Earth Day → 22 April

World Migratory Bird Day → 08 May

World Biodiversity Day → 22 May

World Environment Day → 05 June

Van Mahotasav Saptah → 01-07 July

Wildlife Week → 02-08 October

World Nature Day → 03 October

World Wildlife Day → 06 October

World Birds Day → 12 November

World Energy Conservation Day → 14 November

World Soil Day → 5 December


JE/18/ESE